মেনু নির্বাচন করুন
কুষ্টিয়া জেলা কারাগারটি কুষ্টিয়া জেলার প্রাণকেন্দ্রে ১৯৬৮ সালে জেলা কারাগার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। কারাগারের  পশ্চিম পার্শ্বে সরকারী মহিলা কলেজ, উত্তর পার্শ্বে পাসপোর্ট অফিস এবং দক্ষিণ পার্শ্বে হাউজিং বাজার অবস্থিত। কারা এলাকার পরিবেশ অত্যন্ত মনোরম। এখানে কারা কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য একটি সুন্দর মসজিদ রয়েছে এবং মসজিদ সংলগ্নে কারারক্ষীদের জন্য একটি ০৩ (তিন)তলাবিশিষ্ট ব্যারাক  অবস্থিত।  এছাড়া  কারাগারের পূর্বপার্শ্বে একটি মনোরম পুকুর আছে। কারাভ্যন্তরে বন্দীদের জন্য একতলা বিশিষ্ট কারা হাসপাতাল, ১৭টি বন্দী ব্যারাক, মহিলা বন্দীদের জন্য মহিলা ব্যারাক , ১৭টি ফাঁসির সেল, এছাড়া একটি ডিভিশনাল ওয়ার্ড  আছে।

সাধারণ তথ্য

মোট ধারণ ক্ষমতা = ৬০০ জন৷ পুরুষ = ৫৯০ জন৷ মহিলা = ১০ জন৷ মোট = ৬০০ জন৷

সাংগঠনিক কাঠামো

কর্মকর্তাবৃন্দ

ছবিনামপদবিফোনমোবাইলইমেইল
মোঃ মকলেছুর রহমানকারা তত্ত্বাবধায়ক০৭১-৬২০৯১ ০১৭১৬৮৭৬৪১৯abul222@gmail.com

কর্মচারীবৃন্দ

প্রকল্পসমূহ

গুরুত্বপূর্ণ কোন প্রকল্প নাই।

যোগাযোগ

জেলখানা মোড়, কুষ্টিয়া

টেলিফোন নম্বর ০৭১-৬২০৯১

ই-মেইল- abul222@gmail.com

কী সেবা কীভাবে পাবেন

বন্দীদের সাথে দেখা-সাক্ষাৎ, ওকালতনামা ও ভোকালতনামায় বন্দীর স্বাক্ষর সত্যায়িতকরণ, জামিন ছাড়া, বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশ মোতাবেক যথাসময়ে হাজতী বন্দীদের আদালতে হাজিরকরণ, বন্দীদের যথানিয়মে খাদ্য সরবরাহ করা , চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়, বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশ মোতাবেক যথাসময়ে বন্দীদের মুক্তি প্রদান করা।

প্রদেয় সেবাসমূহের তালিকা

সিটিজেন চার্টার

বন্দীদের সাথে দেখা স্বাক্ষাতের নিয়মাবলী

১। ডিটেন্যু ও নিরাপদ হেফাজতী বন্দীদের সাথে দেখা করতে হলে সংশ্লিষ্ট জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও আদালতের অনুমতি প্রয়োজন।

২। দেখা সাক্ষাত সর্বোচ্চ ৩০ (ত্রিশ) মিনিটের মধ্যে শেষ করতে হবে।

৩। বন্দীদের সাথে দেখা সাক্ষাত করার জন্য কোন প্রকার টাকা পয়সা লেন-দেন নিষিদ্ধ।

৪। মোবাইল বা অন্য কোন নিষিদ্ধ দ্রব্য নিয়ে সাক্ষাৎ কক্ষে প্রবেশ করা যাবেনা।

৫। মোবাইল জমা রাখার জন্য নির্দ্দিষ্ট স্থান নির্ধারিত রয়েছে। নির্ধারিত স্থানে আপনার মোবাইলটি জমা রাখুন।

৬। স্বাক্ষাত করার জন্য আবেদনপত্র দাখিল করতে হয়। আপনি যদি আবেদন পত্র লিখতে না পারেন তাহলে সাক্ষাৎ কক্ষের পার্শ্বে কর্তব্যরত কারারক্ষীর নিকট হতে স্লিপ সংগ্রহ করে সাক্ষাত কক্ষে প্রবেশ করুন।

৭। সাক্ষাৎ প্রার্থীদের সহজ ও ন্যায্য মূল্যে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সরবরাহের লক্ষ্যে সাক্ষাত কক্ষের সামনে ক্যান্টিন রয়েছে। ক্যান্টিনে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ন্যায্য মূল্যে বিক্রয় হচ্ছে।

 

পি সির টাকা জমার নিয়মাবলী

১। এখানে পি সির টাকা জমা নেয়া হয়।

২। পি সির টাকা জমা দেয়ার জন্য কোন আবেদনের প্রয়োজন হয়না।

৩। পি সির টাকা নির্ধারিত স্থানে জমা করুন। অন্য কারো কাছে টাকা জমা দিবেন না

৪। পি সির টাকা জমা দানের ব্যাপারে কোন বাড়তি টাকার প্রয়োজন হয়না। যদি কেহ পিসির টাকা জমা দেয়ার ব্যাপারে অহেতুক সময় ক্ষেপন বা কোন রকম অসুবিধা বা অর্থ দাবী করে তবে তাৎক্ষনিকভাবে নিম্নলিখিত টেলিফোন নাম্বারে জানান।

৫। আপনার বন্দীর পি সির নাম্বার জেনে সঠিক নাম্বারে টাকা জমা দিন।

৬। প্রতি দিনই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পি সি তে টাকা জমা দিতে পারবেন।

৭। তবেআপনি ইচ্ছা করলে ডাকযোগে মানি অর্ডারের মাধ্যমে পিসির টাকা জমা করতে পারেন।

৮। পিসিতে জমাকৃত টাকা দ্বারা বন্দীগণ কারাভ্যন্তরের ক্যান্টিন থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ও খাদ্য দ্রব্য সুলভ মূল্যে ক্রয় করতে পারেন।

 

জামিন সংক্রান্ত নিয়মাবলী

১। জামিনে মুক্তিযোগ্য বন্দিদের তালিকা নোটিশ বোর্ডে টাঙ্গানো আছে।

২। জামিননামা কারাগারে পৌঁছানোর ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া সত্ত্বেও  নোটিশ বোর্ডে টাঙ্গানো তালিকায় আপনার বন্দির নামটি খুজে দেখুন। নাম না থাকলে অনুসন্ধানে খবর নিন।

৩। যে সব বন্দির জামিননামায় ভুল আছে তাদের তালিকাও নোটিশ বোর্ডে টাঙ্গানো আছে। তারা আজ মুক্তি পাবেনা। তারা আগামীকাল মুক্তি পাবার সম্ভাবনা আছে। কোন বন্দি নির্ধারিত সময়ে মুক্ত না হলে অনুসন্ধানে যোগাযোগ করুন।

৪। বন্দি মুক্তির জন্য কোন অর্থের প্রয়োজন হয় না। যদি কেহ অর্থ দাবী করে বা অর্থের বিনিময়ে জামিন ত্বরান্বিত করে দেবে বলে আশ্বাস দেয় তবে তাৎক্ষনিকভাবে বিষয়টি জেলার/ জেল সুপার এর মোবাইল/টেলিফোনে জানাতে পারেন অথবা অনুসন্ধানে রক্ষিত অভিযোগ রেজিষ্টারে লিপিবদ্ধ করতে পারেন।

৫। বন্দি মুক্তির বিষয়টি আধ ঘন্টা পর পর লাউড স্পিকারের মাধ্যমে ঘোষণা করা হচ্ছে। আপনারা বিষয়টি জেনে নিন এবং তদানুযায়ী কাজ করুন।

 

ওকালত নামা স্বাক্ষরের নিয়মাবলী

১। ওকালত নামা নিদ্দিষ্ট বাক্সে জমা দিন।

২। বন্দির পূর্ণ ঠিকানা এবং মামলা বৃত্তান্ত সঠিকভাবে লিখে ওকালতনামা বাক্সে ফেলুন।

৩। ০১ ঘন্টা পর পর ওকালতনাম বাক্স খুলে বন্দির স্বাক্ষরান্তে আইনজীবি/আত্মীয় স্বজনের নিকট

হস্তান্তর করা হয়। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ওকালতনামা ফেরত না পেলে অনুসন্ধানে বা রিজার্ভ গার্ডে কর্তব্যরত প্রধান করারক্ষীর নিকট অথবা নিচে উল্লেখিত টেলিফোন নাম্বারে অবহিত করুন।

৪। ওকালতনামা স্বাক্ষরের জন্য কোন প্রকার টাকা পয়সা লেন-দেন করবেন না। কেহ ওকালতনামা স্বাক্ষরের জন্য আপনার কাছে টাকা পয়সা দাবী করলে রিজার্ভ গার্ডে কর্তব্যরত প্রধান করারক্ষী অথবা নিম্নিলিখিত টেলিফোন নাম্বারে জানাতে পারেন অথবা অনুসন্ধানে রক্ষিত অভিযোগ রেজিস্টারে লিপিবদ্ধ করতে পারে।

 

বন্দিদের নিকট মালামাল সরবরাহের নিয়ামবলী

১। আপনার বন্দির নিকট সরবরাহের নিমিত্তে মালামাল তালিকায় লিপিবদ্ধ করে কর্তব্যরত ইউনিফর্মধারী নাম ও নাম্বারযুক্ত কারারক্ষীর নিকট জমা দিন।

২। আপনার কর্তৃক দেয় মালামাল যত্নের সাথে আপনার বন্দির নিকট পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হবে।

৩। মালামাল বন্দির নিকট পৌঁছানোর জন্য কোন প্রকার অর্থের প্রয়োজন হয় না। যদি কেহ অর্থ দাবী করে তবে তাৎক্ষনিকভাবে নিম্নিলিখিত টেলিফোন নাম্বারে জানাতে পারেন অথবা অনুসন্ধানে রক্ষিত অভিযোগ রেজিস্টারে লিপিবদ্ধ করতে পারে।

৪। মালামালের ভিতর কোন প্রকার অবৈধ দ্রব্য সরবরাহ করার চেষ্টা করবেন না। মালামাল যাচাই করে বন্দির নিকট হস্তান্তর করা হয়ে থাকে। জমাদান কলে যদি অবৈধ মালামালের  অস্তিত্ব সনাক্ত করা যায় তবে সরবরাহকারীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। করাভ্যন্তরে প্রবশের পর মালামালের মধ্যে অবৈধ দ্রব্যাদি পাওয়া গেলে কারা বিধি মোতাবেক বন্দিকে শাস্তি প্রদান করা হবে।

৫। অবৈধ মালামাল প্রবেশ রোধে আপনার সহযোগিতা কামনা করা হচ্ছে।

জেল সুপার       ফোন- অফিস-০৭৬১-৬৩০৪৯

জেলার           ফোন-অফিস ও বাসা-০৭৬১-৬২৪০২

 

বিশ্রামাগারের নিয়মাবলী

১। বিশ্রামাগারে বৈদ্যুতিক পাখা, পানীয় জল এবং টয়লেটের সু ব্যবস্থা রয়েছে।

২। বিশ্রামাগারে পর্যাপ্ত বসার ব্যবস্থা রয়েছে।

৩। অফিসের কোন প্রয়োজনীয় সংবাদ পৌঁছাতে হলে অনুসন্ধানের সাথে যোগাযোগ করুন।

৪। বিশ্রামাগারে অবস্থানকালে কোন প্রকার অসুবিধা হলে কর্তব্যরত প্রধান কারারক্ষী/কারারক্ষীকে অবহিত করুন।

তথ্য অধিকার

বিজ্ঞপ্তি

ডাউনলোড

আইন ও সার্কুলার